UP chairman arrested with 229 sacks of rice

পাবনার বেড়া উপজেলার ঢালারচর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি কোরবান আলীকে ২২৯ বস্তা ভিজিডির চালসহ গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। গতকাল সোমবার রাতে মাসুমদিয়া ইউনিয়নের বাঁধেরহাট এলাকায় তাঁর ব্যক্তিগত গুদাম থেকে চালের বস্তাগুলো জব্দ করা হয়।

র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) সূত্র জানায়, গোপন সূত্রে খবর পেয়ে গতকাল রাতে র‌্যাবের একটি একটি দল মাসুমদিয়া ইউনিয়নের বাঁধেরহাটের একটি গুদামে অভিযান চালায়। গুদামটি ঢালারচর ইউপির চেয়ারম্যান কোরবান আলীর। সেখানে ২২৯ বস্তা ভিজিডির চাল পাওয়া যায়। এ সময় র‌্যাব কোরবান আলীকে আটক এবং চাল জব্দ করে। পরে রাত সাড়ে ১১টার দিকে চালসহ তাঁকে আমিনপুর থানায় সোপর্দ করা হয়।

র‌্যাব-১২ পাবনা ক্যাম্পের কমান্ডার আমিনুল কবির তরফদার বলেন, ‘ঢালারচর ইউপি কার্যালয় থাকা সত্ত্বেও সরকারি চাল সেখানে না রেখে ইউপি চেয়ারম্যান তাঁর নিজ গুদামে এনে রেখেছেন। গুদামটি অপর একটি ইউনিয়নে অবস্থিত। এ বিষয়টি সরকারি বিধির পুরোপুরি লঙ্ঘন। এ জন্য চেয়ারম্যান কোরবান আলীকে চালসহ আটক করে থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।’

স্থানীয় প্রশাসন ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, পদ্মা ও যমুনার চর নিয়ে গঠিত ঢালারচর ইউনিয়নটি দীর্ঘদিন ধরে চরমপন্থী অধ্যুষিত বলে পরিচিত। ফলে নিরাপত্তার অজুহাত দেখিয়ে নির্বাচিত হওয়ার পর কোনো চেয়ারম্যানই সেখানে বাস না করে ইউনিয়নের বাইরে বাস করেন। অথচ ঢালারচর ইউপি কার্যালয়ে রয়েছে চমৎকার একটি ভবন। বর্তমান চেয়ারম্যান কোরবান আলীও একইভাবে ইউপি কার্যালয় থেকে প্রায় ১০ কিলোমিটার দূরে মাসুমদিয়া ইউনিয়নের বাঁধেরহাট এলাকায় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে অস্থায়ী কার্যালয় বসিয়ে ইউনিয়ন পরিষদের কর্মকাণ্ড চালিয়ে আসছেন। এভাবে কর্মকাণ্ড পরিচালনা করায় ইউনিয়নবাসীকে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

বেড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আসিফ আনাম সিদ্দিকী বলেন, ‘কোরবান আলী তাঁর ইউনিয়নের বাইরে বাঁধেরহাটে বাস করেন। নিরাপত্তার হুমকির কারণে সেখানে থেকে তিনি পরিষদের কর্মকাণ্ড পরিচালনা করেন বলে মৌখিকভাবে আমাকে জানিয়েছেন। সরকার থেকে ভিজিডির চাল পাওয়ার পর সেখানে তিনি তা রেখেছেন এবং র‌্যাব সেই চাল জব্দ করেছে বলে জানতে পেরেছি।’

আমিনপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম মঈনউদ্দিন আজ মঙ্গলবার সকালে বলেন, ‘চেয়ারম্যান বাঁধেরহাটে বসেই পরিষদের সব কাজ পরিচালনা করতেন বলে আমরা জানতাম। র‌্যাব তাঁকে চালসহ আটক করে থানায় সোপর্দ করেছে। এ ব্যাপারে গতকাল রাত সাড়ে ১২টার দিকে র‌্যাবের পক্ষ থেকে থানায় মামলা হয়েছে। এখন কোরবান আলীকে জেলহাজতে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে।’

আমিনপুর থানায় আনার পর গতকাল রাত সাড়ে ১১টার দিকে কথা হয় কোরবান আলীর সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘বাঁধেরহাটে আমার ইউনিয়ন পরিষদের অস্থায়ী কার্যালয় অবস্থিত। এই কার্যালয়ের পাশে অবস্থিত গুদামে ভিজিডির চাল নামানো হয়েছিল। ইউএনও সাহেবের অনুমতি সাপেক্ষে এই চাল বিতরণ করার কথা ছিল।’